সেরা ১০ ইলেকট্রিক বাইক

করোনা পরিস্থিতির কারণে বিশ্বে সরকারি-বেসরকারি অনেক প্রতিষ্ঠান এখনো সীমিত পরিসরে পরিচালিত হচ্ছে। গণপরিবহনে আগের মতো ভীড় দেখা যাচ্ছে না। অনেকে করোনার ভয়ে পায়ে হেঁটে ঘরে ফিরছেন। এমন অবস্থায় ঘরে ফিরতে সহায়ক মাধ্যম হতে পারে ইলেক্ট্রিক বাইক। আজ আপনাকে জানাবো সেরা ১০ ইলেকট্রিক বাইক সম্পর্কে-

স্পেশালাইজড টার্বো ভ্যাডো এসএল ইকুইপড
আকারে ছোট হলেও স্পেশালাইজড টার্বো ভ্যাডো এসএল ইকুইপডের মোটর বেশ শক্তিশালী। এর ব্যাটারিতেও চার্জ অনেক বেশি সময় ধরে থাকে। এর ফলে সহজে ঘরে ফেরা সম্ভব হয়। একে হাইব্রিড বাইক হিসেবে অভিহিত করা হয়। বাইকটির হ্যান্ডেলবারে স্বাচ্ছন্দ্যে হাত রাখা যায় এবং দ্রুত চালিয়ে ঘরে ফেরা সম্ভব।

রেড পাওয়ার বাইকস রেডরানার
বেশিরভাগ মানুষ রেড পাওয়ার বাইকটি কেনেন। ফুডপান্ডা, পাঠাও ফুড বা উবার ইটসসহ অন্যান্য কোম্পানিতে কর্মরত খাবার সরবরাহকারীরা সিয়াটেলভিত্তিক বাইকটি ব্যবহার করতে পারেন। রেডরানার বাইকের আসনটিতে আরামে বসার ব্যবস্থা রয়েছে। এটি অনেকটা ভেসপা মোটরসাইকেলের মতো।

প্রপেলা-৭-স্পিড
সস্তা মূল্যে ইলেকট্রিক বাইক কেনার জন্য উৎকৃষ্ট হলো প্রপেলা-৭-স্পিড। ই-বাইকটি নিয়ে পার্কার হোল এক রিভিউয়ে লিখেছে, বাইকটি তাদের দেখা অন্য বাইকগুলোর তুলনায় সবচেয়ে সস্তা। অল্প ব্যয়ে সহজেই বাইকটি কেনা সম্ভব।

টার্ন জিএসডি এস-১০
টার্ন জিএসডি এস-১০ একটি কার্গো বাইক। সড়কে স্বতঃস্ফূর্তভাবে চলার মতো একটি বাইক। আকারে ছোট হলেও প্রতিদিনের বিভিন্ন প্রয়োজনে কাজে আসে। বিশেষ করে পার্সেল ও ক্যুরিয়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা এটি ব্যবহার করে আরাম পাবেন। সম্প্রতি টার্ন জিএসডি জি-২ লঞ্চিং করেছে। এটি ডাবল ব্যাটারি সিস্টেমে চলে।

ব্যাচ ই-বাইক
ই-বাইকের মধ্যে অন্যতম হলো ব্যাচ ই-বাইক। সস্তা মূল্যে পাওয়া যায় এটি। অল্প ব্যয়ে সুদৃশ্যমান বাইকটি ব্যবহার করে আরাম পাবেন নিয়মিত ব্যবহারকারীরা। শিক্ষার্থীরা প্রতিদিনের চলাফেরায় স্বাচ্ছন্দ্যে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

ইলেক্ট্রা টাওনি পাথ গো
ইলেক্ট্রা টাওনি পাথ গো একটি স্টাইলিশ বাইক। ব্যাটারির চার্জ ধারণ ক্ষমতা অনেক বেশি। বাইকটির আসনে বসে অনেক আরাম পাওয়া যায়। বাইকটিতে প্যাডেল করতে সুবিধা রয়েছে এবং সড়কে চালানোর সময় অযথা শব্দ হয় না। সব বয়সের মানুষ এই বাইক কিনতে পারেন।

ক্যানোনডেল কুইক নিও এসএল
উন্নতমানের ব্যাটারি ও সর্বোচ্চ চার্জ নেয়ার ক্ষমতা রয়েছে বাইকটির। মোটরের সাহায্যে দ্রুতগতিসম্পন্ন বাইকটির আসন বেশ আরামদায়ক এবং প্যাডেল করা সহজ। যেসব ব্যক্তি অল্প বাজেটে বাইক নিতে চান সেসব ব্যক্তি এই ই-বাইক কিনতে পারেন। এছাড়া দৈনন্দিন কাজে বাইকটি ব্যবহার করে শিক্ষার্থীরা দ্রুত স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে পারেন।

আরবান অ্যারো ফ্যামিলি ইলেক্ট্রিক কার্গো বাইক
ডাচ-স্টাইলে তৈরি ই-বাইকটির সামনের বক্সটিতে দুই-তিনজন ব্যক্তি অনায়াসে বসতে পারেন। অর্থাৎ চালক পেছনে বসে চালিয়ে নিয়ে যাবে এবং দুই-তিনজন যাত্রী বক্সটিতে বসে যাত্রা করতে পারেন। এছাড়া যেকোনো মালপত্রও সেখানে রাখা যেতে পারে। বাইকটি ভ্রমণের জন্য নিরাপদ ও আরামদায়ক। এর প্যাডেলগুলো নিচের দিকে রয়েছে। ব্যবসায়ীরা এই বাইক নিলে লাভবান হবেন।

টার্ন ভেক্ট্রোন এস-১০
আকারে ছোট হলেও টার্ন ভেক্ট্রোন এস-১০ ই-বাইক ব্যবহারের উপযোগী এবং সহজেই প্যাডেলিং করা যায়। এর টায়ারগুলো অনেক উন্নতমানের। শিশু-কিশোরদের খেলাধুলার জন্য বাইকটি অনেক উপকারী।

লেক্ট্রিক ই-বাইকস লেক্ট্রিক এক্সপি স্টেপ-থ্রু
লেক্ট্রিক ই-বাইকস লেক্ট্রিক এক্সপি স্টেপ-থ্রু ই-বাইকে ফোল্ডিং সিস্টেম রয়েছে। এটি ৬৩ পাউন্ড ওজনের। স্বচ্ছন্দে এটি চালানো যায় এবং বাইকটি চালিয়ে সহজেই ঘরে ফেরা যায়। তরুণ-তরুণী ও বয়সে প্রবীণ ব্যক্তিদের জন্য এটি অনেক আরামদায়ক।