অনাকাঙ্ক্ষিত বন্ধুকে এড়িয়ে চলতে চাইলে

সব মানুষকে ভালো লাগবে এমন কোনো কথা নেই। এমন অনেকে রয়েছেন যারা অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে জীবনে আসেন। যাদের সচরাচর প্রয়োজন হয় না। এমন বন্ধু যদি আপনাকে বিরক্ত করে তাহলে তার থেকে দূরে থাকার কিছু উপায় রয়েছে।

দূরত্ব রাখুন
যে মানুষ অপ্রত্যাশিতভাবে কথা বলতে চায় কিংবা অনভিপ্রেত কাজ করতে থাকে সেই মানুষের কাছ থেকে দূরত্ব রাখা উত্তম। সমাজে কিছু মানুষ রয়েছে যারা অন্যকে বিরক্ত করতে কাছে আসে। এটি তারা উপলব্ধি করতে পারে না। কোনো মানুষের জন্য নিজের কাজকর্মে বিঘ্ন ঘটতে থাকলে তার থেকে দূরে থাকাই ভালো। কথাবার্তা বন্ধ করে দেয়া হতে পারে ভালো উদাহরণ। এমন মানুষ পরবর্তী কোনো সময়ে কাছে এলে তার সঙ্গে ফরমাল ব্যবহার করা উচিত।

সম্পর্ক ছিন্ন করুন
কোনো বন্ধু যদি একটু বেশিই বিরক্ত করে ফেলে কিংবা তাকে যদি আপনার ভালো না লাগে তবে তার সম্পর্ক ছিন্ন করে ফেলুন। কখনোই তার সঙ্গে চলাফেরা বা ওঠাবসা করবেন না। তার কোনো কথা বা পরামর্শ শুনবেন না। অযাচিতভাবে কিছু বলতে এলে তাকে থামিয়ে দিন। তবে অপমান করা থেকে বিরত থাকুন।

দেয়াল তৈরি করুন
অনাকাঙ্ক্ষিত মানুষের কাছ থেকে দূরে থাকার জন্য দেয়াল তৈরি করুন। কোনো সময়ে দেখা হলে যে কথা না বললেই নয় শুধু সেটুকু বলুন। তারপর তাকে এড়িয়ে যান। সরাসরি বলে দিন, ‘আমি আর তোমাকে আমার বন্ধু হিসেবে ভাবতে চাই না।’ এভাবে সেই মানুষের জীবন থেকে সরে আসুন।

যোগাযোগ বন্ধ করুন
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে তাকে ‘আনফ্রেন্ড’ করে দিন। প্রয়োজনে ব্লক করে দিন। তার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরটিতেও ব্লক করে রাখুন। এভাবে তার সম্পর্কে যোগাযোগ বন্ধ করার মাধ্যমে দূরত্ব তৈরি হয়ে যাবে। যোগাযোগ বন্ধ হলে অনাকাঙ্ক্ষিত মানুষটি আর আপনাকে বিরক্ত করবে না। যোগাযোগ বন্ধ করার পরেও যদি সে বিব্রত করে তবে তাকে সাফ জানিয়ে দিন, সে আপনার বন্ধু নয়।

প্রশ্নের জন্য প্রস্তুত থাকুন
অপ্রত্যাশিত বন্ধুর পাল্টা প্রশ্নের জন্য প্রস্তুত থাকুন। প্রশ্ন শুনে অনেকেই ঘাবড়ে যান কিংবা রেগে যান। এমনটি করলে পরিস্থিতি অনেক খারাপ হয়ে যাবে। তাই অনাকাঙ্ক্ষিত মানুষটি পাল্টা প্রশ্ন করার সময় শান্ত থাকুন এবং মাথা ঠান্ডা রাখুন। রাগের বহিঃপ্রকাশের মাধ্যমে গোপনীয়তা বিঘ্নিত হতে পারে। সেই কারণে যতটা পারা যায় পাল্টা প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *