বনমানুষের শহর সুমাত্রার সেরা ৫ জায়গা

বিশ্বের যে দুই স্থানে বনমানুষ দেখা যায় তার মধ্যে অন্যতম এই সুমাত্রা। শুধু বনমানুষ দেখার জন্যই দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রায় আসেন অসংখ্য বিদেশি পর্যটক। ইন্দোনেশিয়ার সুন্দা দ্বীপের অন্তর্ভুক্ত এটি। বালি ও লম্বকের মতো এটিও অনেক জনপ্রিয় জায়গা। এখানে রয়েছে কয়েকটি দর্শনীয় স্থান।

মেদান
ইন্দোনেশিয়ার অন্যতম বড় শহর মেদান। উত্তর সুমাত্রার রাজধানী। শহরটিতে আকর্ষণীয় সাংস্কৃতিক স্থাপনা রয়েছে। ইস্তানা মাইমুন উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান। এটি দেশটির যোগ্যকর্তা সুলতানদের বাসস্থান। এছাড়া এই শহরে জং এ ফাই ম্যানসন ও মসজিদ রায়া রয়েছে। ছোট-বড় সব বয়সের মানুষ শহরটিতে ভ্রমণ করেন।

তোবা হ্রদ
সুমাত্রার প্রধান আকর্ষণ তোবা হ্রদ। মেদান থেকে এখানে পৌঁছাতে ৫ ঘণ্টা সময় লাগে। হ্রদটি ব্যাপক জনপ্রিয়। সাঁতারুদের জন্য উৎকৃষ্ট জায়গা এটি। বেশিরভাগ মানুষ নৌকাযোগে এখানে আসতে দেখা যায়। তোবা হ্রদের এলাকায় কাঠের তৈরি ঘর দেখা যায়। পরিবারের সঙ্গে খুব ভালো সময় কাটানো যায় এখানে।

বুকিট লাওয়াং
ইন্দোনেশিয়ার অন্যতম আকর্ষণীয় অঞ্চল বুকিট লাওয়াং। সুমাত্রার ছোট একটি গ্রাম। উল্লেখযোগ্য দর্শনীয় স্থান গুনুং লয়সার ন্যাশনাল পার্ক। জঙ্গলে পরিপূর্ণ এই অঞ্চল ওরাংওটাং বা বনমানুষের জন্য জনপ্রিয়। অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয় সব বয়সের মানুষকে এখানে বেশি ভ্রমণ করতে দেখা যায়।

পাডাং
পশ্চিম সুমাত্রার শহর পাডাং। এখানে বিদেশি পর্যটকরা সচরাচর ভ্রমণ করেন না। এখানে ইন্দোনেশিয়ার ঐতিহ্যবাহী ও বৈচিত্র্যপূর্ণ খাবার পাওয়া যায়। সার্ফিংয়ের জন্য এটি অনেক বিখ্যাত। এছাড়া শহরটি গভীর রাতে চঞ্চল হয়ে ওঠে। দেশটির মানুষ একাকী সময় কাটানোর জন্য শহরটিতে ভ্রমণ করেন। এখানে অনেক সুস্বাদু খাবার পাওয়া যায়।

মেন্টাওয়াই দ্বীপ
৭০টির বেশি দ্বীপের সমন্বয়ে গঠিত মেন্টাওয়াই দ্বীপ। পশ্চিম সুমাত্রার পাডাং শহরের পাশে অবস্থিত। সাঁতারুদের কাছে অনেক পছন্দের জায়গা এটি। এখানে বিনোদনের সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। সার্ফিং করার জন্য উৎকৃষ্ট স্থান এটি। ইন্দোনেশিয়ার মানুষের কাছে দ্বীপটি অনেক ভালো লাগার। শিশু-কিশোরদের খেলাধূলার জন্যও ব্যবস্থা রয়েছে।