মেসি-নেইমারদের সঙ্গে খেলার হাতছানি ভারতেরও!

আসছে জুনে কোপা আমেরিকার বিশেষ আসরে খেলার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়া ও কাতারের। কিন্তু বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ঠাসবুনটের সূচির কারণে দুই দলই নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছে। এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের অধীনে থাকা দুই বড় দল সরে যাওয়ার কারণে এখন দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ ফুটবল আসরে খেলার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে ভারতের, সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কুশল দাস।

টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘কোপা আমেরিকায় আমন্ত্রিত দুই এশিয়ান দল ছিল কাতার আর অস্ট্রেলিয়া। টানা সূচির ব্যস্ততা থাকায় অস্ট্রেলিয়া সেখানে যেতে পারছে না। তখনই ভারতের সঙ্গে কথা বলে কনমেবল, যারা আমাদেরকে পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী ও রোমাঞ্চিত।’

তবে ঠাঁসা সূচির বেড়াজালে আটকে আছে ভারত নিজেও। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের খেলাই যে এখনো শেষ হয়নি! এপ্রিল থেকে জুনের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত সূচি থাকলেও ভেন্যু নিয়ে জটিলতা চোখরাঙানি দিচ্ছে তা আরও পিছিয়ে যাওয়ারও। ভারত তাই কনমেবলকে চূড়ান্তভাবে জানায়নি কিছু।

কুশলের ভাষ্য, ‘সূচি নিয়ে সমস্যা আছে বেশ। কোপা আমেরিকা হবে জুনে। আর আমরা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচগুলো মার্চ-এপ্রিলের দিকে আয়োজন করা যায় কিনা তা নিয়ে কাজ করছি। কিন্তু বাংলাদেশ, আফগানিস্তানের মতো গ্রুপে থাকা কিছু দলের কারণে সেটা সম্ভব হচ্ছে না।’

আপাতত সেটা সম্ভব হচ্ছে না, ইঙ্গিতে তেমনটাই জানালেন এআইএফএফ সাধারণ সম্পাদক। বললেন, ‘বাছাইপর্বের ম্যাচগুলো যদি মার্চ-এপ্রিলের দিকে হয়ে যেত, ব্যাপারটা দারুণ হতো দলের জন্য। এটা কঠিন একটা টুর্নামেন্ট, কিন্তু আমাদের তরুণ দলটার প্রয়োজন তো সেটাই। আমি আশা করবো, আয়োজকরা যেহেতু ভারতে আগ্রহ দেখিয়েছে, অদূর ভবিষ্যতে তেমন কিছু হলেও হতে পারে।’

এদিকে ভারতীয় কোচ ইগস স্টিমাচও সুযোগের কথাটা স্বীকার করলেন। জানালেন, লিওনেল মেসি, নেইমার, লুই সুয়ারেজদের সঙ্গে খেলার জন্য দল রোমাঞ্চিতও ছিল। তিনি বলেন, ‘আমরা বেশ রোমাঞ্চিত ছিলাম। অস্ট্রেলিয়ার পরিবর্তে আমাদের খেলার একটা সুযোগ ছিল। হয়ে গেলে ভালো একটা অভিজ্ঞতাই হতো। আশা করছি আমরা ভবিষ্যতে আবারও আমন্ত্রিত হবো।’

অস্ট্রেলিয়া কিংবা কাতারও না খেললেও আসছে আসরটা অনন্য হয়ে থাকবে আরেকটা কারণে। কোপার ১০৫ বছরের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টুর্নামেন্টটা অনুষ্ঠিত হবে দুটো দেশে। আগামী ১১ জুন আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়ায় শুরু হবে দক্ষিণ আমেরিকান শ্রেষ্ঠত্বের আসরটি।