সুন্দর কথা বললে সদকার সওয়াব

ইসলাম মানুষকে বরাবরই সুন্দরের প্রতি উৎসাহ দেয়। মানুষের সঙ্গে সদাচরণ করতে উদ্বুদ্ধ করে। সুন্দর-ভারসাম্যপূর্ণ ও ভালো কথা বলার তাগিদ দেয়। সুন্দর কথা বলে মানুষের হৃদয় জয় করা যায়। আবার সুন্দর কথা ভালো কিছুর প্রতি উদ্বুদ্ধও করে। সুন্দর কথায় গুনাহ মাফ হয়। সদকার সওয়াব মিলে।

কেউ হয়তো দরিদ্র হতে পারে। চাইলে দান-সদকা করতে পারেন না। কিন্তু মানুষের সঙ্গে ভালো কথা বলে ও উত্তম আচরণ করে সওয়াব অর্জন করতে পারে। এতে তিনি দান-সদকার সওয়াব লাভ করবেন।

কারণ উত্তম ও সুন্দর কথা সদকার সমতুল্য। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘সূর্য উদিত হওয়া প্রতিটি দিনেই মানুষের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ওপর সদকা দেওয়া আবশ্যক। কাউকে বাহনে উঠতে কিংবা কোনো সামগ্রী বাহনে তুলে দিতে সাহায্য করা সদকাস্বরূপ। সুন্দর কথা বলা সদকাস্বরূপ। নামাজে যাওয়ার প্রতিটি পদক্ষেপ সদকাস্বরূপ। পথ থেকে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে ফেলা সদকাস্বরূপ।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ১০০৯)

উত্তম ব্যবহারে জাহান্নাম দূরে
সুন্দর কথা ও উত্তম ব্যবহার মানুষকে জাহান্নাম থেকে দূরে সরিয়ে দেয়। আদি ইবনে হাতিম (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন—

জাহান্নামের আগুন থেকে আত্মরক্ষা করো, যদিও তা খণ্ডিত খেজুরের বিনিময়েও হয়। কেউ যদি তা করতেও সক্ষম না হয়, সে যেন অন্তত ভালো ও সুন্দর ব্যবহার দিয়ে হলেও নিজেকে জাহান্নাম থেকে বাঁচায়।
(সহিহ বুখারি, হাদিস : ৬৫৪০)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *