বাংলাদেশকে আশা দেখাচ্ছেন স্পিনাররা

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজ শুরুর ম্যাচটি হেরে ব্যাকফুটে বাংলাদেশ। সিরিজ বাঁচাতে দ্বিতীয় টেস্টে জয় ভিন্ন কোনও রাস্তা নেই টাইগারদের সামনে। কঠিন সমীকরণ মেলাতে ঢাকা টেস্টে খেলতে নেমেও বিপাকে স্বাগতিকরা। প্রথম ইনিংসে রাজত্ব দেখিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তবে ১১৩ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করা ক্যারিবীয়দের কড়া সতর্কবার্তা দিয়েছে বাংলাদেশি স্পিনারদের। শেষ বিকেলে ৩ উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচে ফেরার আভাস দিয়ে রাখলেন তারা।

রাকিম কর্নওয়েল, কেন তাকে নিয়ে এতো আলোচনা, সেটি চট্টগ্রামে না হলেও ঢাকায় ফিরেই বুঝিয়ে দিলেন তিনি। অফ স্পিনের বিষে নীল করেন টাইগার ব্যাটসম্যানদের। ঘরের মাঠে বরাবরই স্পিন নির্ভর দল বাংলাদেশ। টেস্টে তো আরও বিধ্বংসী স্বাগতিক স্পিনাররা। তবে পেস অ্যাটাকের জন্য খ্যাতি কুড়ানো উইন্ডিজের স্পিনাররা কম যান না। চট্টগ্রাম টেস্টে ক্যারিবীয়দের দুই স্পিনার মিলে টাইগারদের ১২ উইকেট তুলে নেন। যদিও সেখানে খুব একটা আলো ছড়াতে পারেননি কর্নওয়েল।

ঢাকা টেস্টের শুরুতেই বাজিমাত তার। ব্যাটসম্যানরা তাদের দায়িত্ব পালন করার পর বোলিং বিভাগের নেতৃত্ব দেন ৬ ফুট ৬ ইঞ্জি উচ্চতার এই স্পিনার। মুমিনুল, মুশফিক, লিটনদের স্পিন বিষে নীল করে একাই ৫ উইকেট তুলে নেন কর্নওয়েল। তাতে ২৯৬ রানেই গুঁটিয়ে যায় বাংলাদেশের ইনিংস। প্রথম ইনিংসে ৪০৯ রান তোলা সফরকারীরা দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট হাতে নেওয়ার আগেই লিড পায় ১১৩ রানের।

তৃতীয় দিনের চা বিরতির পর বাংলাদেশকে ২৯৬ রানে আটকে দিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং শুরু করে উইন্ডিজ। জন ক্যাম্পবেলকে নিয়ে ওপেন করতে নামেন অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। তবে তাকে সুবিধা করতে দেননি নাঈম। উইকেটের বড় কৃতিত্বটা অবশ্য লিটন পাবেন। ব্র্যাথওয়েটের হালকা গ্লাভস ছোঁয়া বলে আউটের আবেদন জানিয়েছিল স্বাগতিক শিবির। আম্পায়ার অবশ্য তেমনটি মনে করেননি। বাধ্য হয়ে অধিনায়ক মুমিনুলকে চ্যালেঞ্জ জানাতে বলেন লিটন, এতেই কপাল পোড়ে ব্র্যাথওয়েটের। সিদ্ধান্ত বদলাতে বাধ্য হন আম্পায়ার।

দ্বিতীয় আঘাত হানেন মিরাজ। এই অফ স্পিনারের করা ইনিংসের নবম ওভারের তৃতীয় বলটি গুডলেংথে পড়ে হালকা লাফিয়ে ওঠে, এতেই লাইন হারান ব্যাটসম্যান মোসেলে, আলতো করে খোঁচা দিলে স্লিপে ধরা পড়েন ব্যক্তিগত ৭ রান করে।

দিনের খেলা শেষের খানিক আগে তৃতীয় শিকারটি করেন তাইজুল। এবার বোকা বনে যান ওপেনার ক্যাম্পবেল। বাঁহাতি স্পিনারের শার্প-টানের বলটি ডিফেন্স করেছিলেন ক্যাম্পবেল। তবে সেটি বাউন্স করে উইকেটের উপরে থাকা বেলে আঘাত করে। ৪৮ বল খেলে ১৮ রান নিয়ে মাঠ ছাড়েন ক্যাম্পবেল।

এরপর অবশ্য সুযোগ তৈরি করেছিল স্বাগতিকরা, তবে সেটি কাজে লাগাতে পারেনি। ফলে ৪১ রানে তিন উইকেট হারিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করে উইন্ডিজ। ১৫৪ রানের লিডকে আরও বাড়িয়ে নিতে ম্যাচের চতুর্থ দিন বোনার ৮ ও নাইটওয়াচম্যাচ হিসেবে নামা ওয়ারিক্যান ২ রান নিয়ে ব্যাটিং শুরু করবেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

উইন্ডিজ: ৪০৯ ও ৪১/৩ (ক্যাম্পবেল ১৮, বোনার ৮*; তাইজুল ১/১৩)
বাংলাদেশ: ২৯৬ (লিটন ৭১, মিরাজ ৫৭, মুশফিক ৫৪; কর্নওয়েল ৫/৭৪)