আলজেরিয়ার ৮ দর্শনীয় স্থান

আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে বড় দেশ আলজেরিয়া। বৈচিত্র্যপূর্ণ প্রাকৃতিক শোভামণ্ডিত আলজেরিয়া সহজেই পর্যটকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে। দেশটির সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান সাহারা অঞ্চল। আফ্রিকা মহাদেশে অ্যাডভেঞ্চার করতে আসা পর্যটকদের এই অঞ্চলে বেশি ভ্রমণ করতে দেখা যায়। আলজেরিয়ার সেরা ৭ দর্শনীয় স্থান নিয়ে আপনাদের বলছি-

১. আলজিয়ারস

আলজেরিয়ার রাজধানী আলজিয়ারস। এখানে ৩৫ লক্ষ মানুষের বসবাস রয়েছে। তুরস্কের অটোমান সুলতানদের শাসনামলে এই শহরে প্রথম বসতি গড়ে ওঠে। শহরটিতে রয়েছে অনেক ঐতিহাসিক স্থাপনা। ইতিহাসসচেতন মানুষ আলজিয়ারস শহরে বেশি ভ্রমণ করেন।

২. টামানরাসেট

আলজেরিয়ার অন্যতম আধুনিক শহর টামানরাসেট। এই শহরে রয়েছে হাজারো দোকান, রেস্তোরাঁ, ব্যাংক। টামানরাসেট শহরে ভোজনবিলাসী মানুষকে বেশি ভ্রমণ করতে দেখা যায়। টামানরাসেট শহরের পাশেই রয়েছে আহাগার ন্যাশনাল পার্ক।

৩. ওরান

আলজেরিয়ার দ্বিতীয় বড় শহর ওরান। শহরটি বন্দর শহর হিসেবে পরিচিত। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যবেষ্টিত ওরান শহরের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু এর ঐতিহাসিক ভবন। এখানে কারুকার্যময় মসজিদ রয়েছে। দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ এসব মসজিদ দেখতে আসেন।

৪. আন্নাবা

ফিনিশীয়রা এই শহরে প্রথম বসতি গড়ে তোলে। এই শহরে রয়েছে আলজেরিয়ার জাতীয় বন্দর। এই শহরে রয়েছে অনেক ঐতিহাসিক স্থাপনা। সব বয়সের মানুষ এই শহরে ভ্রমণ করেন।

৫. কনস্ট্যান্টাইন

সম্রাট কনস্ট্যান্টিনোপলের নামানুসারে এই শহরের নাম রাখা হয়। এক সময় এই শহর রোমান সাম্রাজ্যের রাজধানী ছিলো। কনস্ট্যান্টাইন শহরের মনোমুগ্ধকর দৃশ্যে বিমোহিত হন সব বয়সের মানুষ।

৬. ঘার্দাইয়া

সাহারা মরুভূমির পাশে ঘার্দাইয়া শহর অবস্থিত। আফ্রিকা মহাদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমণ্ডিত ও পুরনো শহর ঘার্দাইয়া। ঘার্দাইয়া শহরে সিদি ব্রাহিম মসজিদ মানুষকে আকর্ষণ করে।

৭. সেটিফ

রোমান সম্রাটদের শাসনামলে সেটিফ শহরে বসতি গড়ে ওঠে। শহরটিতে রয়েছে অসংখ্য রোমান ভাস্কর্য। সেটিফ শহরে বিশ্বের সব বয়সের ইতিহাসসচেতন মানুষ ভ্রমণ করে থাকেন। এই শহর লিটল কেবলিয়ে অঞ্চলে অবস্থিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *