গোসলের সময় যে ৫ ভুল করবেন না

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার জন্য প্রতিদিন গোসল করা জরুরি। সারাদিনের ক্লান্তি অনেকটাই দূর হতে পারে গোসলের মাধ্যমে। এটি আমাদের শরীর পরিষ্কার করার পাশাপাশি মনকেও সতেজ করে। কিন্তু গোসলের সময় আমরা না জেনেই কিছু ভুল করে থাকি। আর সেসব ভুল আমাদের ক্ষতি ডেকে আনে। জেনে নিন কী সেই ভুল-

অপরিষ্কার স্পঞ্জ ব্যবহার

নিজেকে পরিষ্কার করার জন্য যে স্পঞ্জ ব্যবহার করেন, সেই স্পঞ্জ পরিষ্কার করেন তো? অনেকেই এটি নিয়মিত পরিষ্কার করে না। সবার উচিত গোসলের আগে স্পঞ্জ ভালোভাবে পরিষ্কার করে নেয়া। কারণ গোসলের শেষে আপনি যতই ভালো করে স্পঞ্জ ধুয়ে রাখুন না কেন, এতে ব্যাকটেরিয়া জমবেই। আর গোসলের আগে তা পরিষ্কার করে না নিলে ব্যাকটেরিয়া ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। তাই প্রতিবার গোসলের আগে ভালোভাবে স্পঞ্জ ধুয়ে নিন। সম্ভব হলে প্রতি দুই মাসে একবার স্পঞ্জ বদল করুন।

ভুল সাবান ব্যবহার করা

অনেকেই ভাবেন, সাবানের আবার ঠিক-ভুল কী! ত্বক পরিষ্কারের জন্য যেকোনো একটি সাবান হলেই হয়! কিন্তু এটি একদমই ভুল ধারণা। কারণ আপনি যদি ভুল সাবান ব্যবহার করতে থাকেন তবে তার প্রভাব পড়বে আপনার ত্বকে। ত্বক তার স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা হারিয়ে শুষ্ক ও ম্লান হতে থাকবে। আপনার বাহ্যিক সৌন্দর্য নষ্ট করার জন্য একটি ভুল সাবানই যথেষ্ট। তাই গোসলের সময় সাবান নির্বাচনে সতর্ক হোন।

বেশি সময় ধরে গরম পানিতে গোসল

গরম পানিতে গোসল করতে আরামবোধ করেন অনেকে। বিশেষ করে শীতের সময়ে গরম পানি ছাড়া গোসল করতে পারেন না বেশিরভাগ মানুষ। গরম পানিতে গোসল করলে তা আমাদের শরীরের নানা উপকার করে। কিন্তু আপনি যদি বেশি সময় ধরে গরম পানিতে গোসল করেন তাহলে তা ক্ষতির কারণ হতে পারে। এর ফলে শরীরে প্রভাব পড়বে। এমনকী এটি চুল ও ত্বকের স্বাভাবিক সৌন্দর্য নষ্ট করে দিতে পারে।

শরীর ভালোভাবে পরিষ্কার না করা

গোসলের সময় অনেকেই ভালোভাবে শরীর পরিষ্কার করেন না। সাবান-শ্যাম্পু মাখলেই শরীর পরিষ্কার হয় না, ব্যবহারের সঠিক নিয়মও জানতে হয়। শরীর ঠিকভাবে পরিষ্কার না করলে অস্বস্তি বোধ করবেন, পাশাপাশি ময়লা জমে লোমকূপ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ফলে দেখা দিতে পারে ব্রণের মতো সমস্যা।

জোরে স্ক্যাল্প ঘষা

স্ক্যাল্প বা মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখা জরুরি। কারণ একটু অযত্ন করলেই খুশকি জমতে পারে। আর সেখান থেকে আরও অনেক সমস্যা ডেকে আনতে পারে। তবে অনেকে মাথার ত্বক পরিষ্কার করার সময় বেশ জোরে ঘষে থাকেন। এটি একদমই ঠিক নয়। কারণ এরকমটা নিয়মিত করতে থাকলে স্ক্যাল্প ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পাশাপাশি চুলও ড্যামেজ হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *