ঘুরে আসুন স্লোভেনিয়া: সেরা ১০ জায়গা

ইউরোপের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত স্লোভেনিয়া পর্যটনসমৃদ্ধ একটি দেশ। বলকান দেশসমূহের অন্তর্গত এই দেশ পূর্ব দিকে আল্পস পর্বতমালা এবং আদ্রিয়াটিক সমুদ্র দ্বারা পরিবেষ্টিত। ইতালি, ক্রোয়েশিয়া ও হাঙ্গেরীর পাশে অবস্থিত এই দেশের সেরা ১০ দর্শনীয় স্থান নি আপনাদের জানাচ্ছি।

১. ম্যারিবর

লাজুবলজানা শহরের পরে স্লোভেনিয়ার বড় শহর হিসেবে ম্যারিবর শহরের নাম চলে আসে। এই শহর অস্ট্রিয়ার সীমান্তের কাছে রয়েছে। দ্রাভা নদীর তীরে ম্যারিবর শহর অবস্থিত। এই শহরে রয়েছে অনেক সুরক্ষিত দুর্গ।

২. কপার

স্লোভেনিয়ার অন্যতম পুরনো উপকূলবর্তী শহর কপার। এই শহরের মূল আকর্ষণ প্রধান বন্দর। বন্দরটি স্লোভেনিয়ার অবকাঠামো ক্ষেত্রে সবচেয়ে উন্নত। শহরের প্রাণকেন্দ্রে রয়েছে টিটো স্কয়ার। এই শহরে কপার মেরিনা সমুদ্রসৈকতে সব বয়সী মানুষকে ভ্রমণ করতে দেখা যায়।

৩. ক্রাঞ্জস্কা গোরা

স্লোভেনিয়ার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত ক্রাঞ্জস্কা গোরা শহরে শীতকালে পর্যটকরা বেশি ভ্রমণ করেন। শীতকালে যখন বরফ পড়তে শুরু করে তখন এই শহর পর্যটকদের পদধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে। বরফের ওপর স্কেটিংও করে থাকেন দর্শনার্থীরা।

৪. কেলজি

স্লোভেনিয়ার অন্যতম পুরনো শহর কেলজিতে চতুর্দশ শতকে বসতি গড়ে ওঠে। পাহাড়ঘেঁষা এই শহর সব বয়সী মানুষের কাছে পরিচিত। পাহাড় থেকে দাঁড়িয়ে পুরো কেলজি শহর দেখা যায়। এই শহরের নান্দনিক স্থাপত্য দেখে দর্শনার্থীরা মুগ্ধ হন। এই শহরে অনেক অভিজাত ভবন রয়েছে।

৫. টুজ

দ্রাভা নদীর তীরে অবস্থিত টুজ শহর স্লোভেনিয়ার পূর্ব দিকে অবস্থিত। এই শহরের ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলো নান্দনিক স্থাপত্যে নির্মিত হয়েছে। প্রস্তর যুগ থেকে এই শহরের ভিন্ন ধারার সংস্কৃতি রয়েছে এবং বিশ্বের সবচেয়ে পুরনো শহর এটি। ১৯০৭ সালে নির্মিত টুজ দুর্গ এই শহরে অবস্থিত। এছাড়া ত্রয়োদশ শতকে নির্মিত ডমিনিকানদের আশ্রম দর্শনার্থীদের কাছে পছন্দের।

৬. পিরান

স্লোভেনিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে এবং আদ্রিয়াটিক সমুদ্রের উপকূলে অবস্থিত শহরের নাম পিরান। এই শহরে অসংখ্য রিসোর্ট রয়েছে। ৫ শতক ধরে এই শহর ভেনেশিয়ান সাম্রাজ্যের দ্বারা শাসিত হয়েছে। পিরান শহর স্লোভেনিয়ার অন্যতম ছোট শহর হিসেবে মানুষের কাছে পরিচিত। এই শহরে রয়েছে পুরনো অভিজাত ভবন ভেনেশিয়ান হাউস ও মনোরম গীর্জা সেন্ট জর্জ চার্চ।

৭. পোস্টোজনা

স্লোভেনিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত অন্যতম ছোট শহর পোস্টোজনা। এই শহরের প্রাকৃতিক শহর নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে পরিপূর্ণ। প্রকৃতিপ্রেমী সব বয়সী মানুষকে এই শহরে ভ্রমণ করতে দেখা যায়।

৮. ত্রিগলাভ ন্যাশনাল পার্ক

অমিয় সৌন্দর্যে ভরা ত্রিগলাভ ন্যাশনাল পার্কে সব শ্রেণীর মানুষকে ভ্রমণ করতে দেখা যায়। নান্দনিক প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখার জন্য সমবেত হন অনেক পর্যটক। স্লোভেনিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় জায়গা এই পার্ক। এই পার্কে অবস্থিত একটি ফুটওভার ব্রিজ অ্যাডভেঞ্চারপ্রেমী মানুষকে অনেক আনন্দ দেয়। এই ফুটওভার ব্রিজ উনবিংশ শতকে নির্মিত হয়।

৯. লেক ব্লেড

ত্রিগলাভ ন্যাশনাল পার্কে রয়েছে লেক ব্লেড। লেকের মাঝে অবস্থিত চরে রয়েছে একটি গীর্জা যা সপ্তদশ শতকে নির্মিত। এছাড়া এখানে রয়েছে ব্লেড দুর্গ। দুর্গটিও সপ্তদশ শতকে নির্মিত হয়েছে। সব বয়সের মানুষ এখানে ভ্রমণ করেন।

১০. লজুবলজানা

স্লোভেনিয়ার রাজধানী লজুবলজানা শহরের প্রধান আকর্ষণ ট্রিপল ব্রিজ। এই শহরে রয়েছে প্রত্নতাত্ত্বিক যাদুঘর, মনোরম চিড়িয়াখানা এবং স্লোভেনিয়ার জাতীয় থিয়েটার। এই শহরে আরও রয়েছে সুরক্ষিত দুর্গ। স্লোভেনিয়ার অন্যতম পুরনো ও জনপ্রিয় শহর এটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *