ভারতে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর ৭ জায়গা

কর্মব্যস্ত জীবনের ফাঁকে পর্যটকরা ভ্রমণেই আনন্দ খুঁজে পান। পরিবারের সব সদস্যের সঙ্গে ভ্রমণে আনন্দের যেন শেষ নেই। পরিবারের মানুষের সঙ্গে ভ্রমণের জন্য ভারতে রয়েছে অনেক দর্শনীয় স্থান। পাহাড়-পর্বতে ঘেরা এসব দর্শনীয় স্থান মনকে মুগ্ধ করে ফেলে। আজ আপনাদের বলবো ভারতের এমন ৭ জায়গা সম্পর্কে যেখানে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো যায়। চলুন জেনে নেয়া যাক-

১. জিভি

পাহাড়-পর্বতের পাশে ছোট রাস্তা। দিল্লির জিভি অঞ্চলে এলে নির্মল আনন্দে ভরে উঠবে মন। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সুন্দর সময় কাটানোর ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। ভারতের রাজধানী দিল্লি থেকে জিভি অঞ্চলের দুরত্ব ৫০৮ কিলোমিটার। পানিপথ, কার্নাল, কুরুক্ষেত্র, আম্বালা, জিরাকপুর, সিমলা, নার্কান্দা হয়ে জিভি অঞ্চলে যাওয়া যায়।

২. কানাতাল

দিল্লির ব্যস্ততম সড়ক থেকে একটু দূরে অবস্থিত কানাতাল। উত্তরাখন্ডের সেরা জায়গাগুলোর অন্যতম। দিল্লি থেকে ৩১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই জায়গা। গঙ্গা নদীর তীরে অনেক বিখ্যাত মন্দির রয়েছে। মুজাফফরনগর থেকে কানাতাল অঞ্চলের দুরত্ব ২৯২ কিলোমিটার। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কানাতালের মন্দিরগুলোয় পূজা-অর্চনা করতে আসেন।

৩. কাসাউলি

দিল্লি থেকে একটু দূরে অবস্থিত হিমাচল প্রদেশের কাসাউলি অঞ্চলে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে উপর থেকে চণ্ডীগড়ের সামগ্রিক দৃশ্য দেখতে কাসাউলি অঞ্চলের মানকি পয়েন্ট পাহাড়ে উঠতে হবে। এছাড়া পর্যটকরা সাতলুজ নদীতে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে আসেন।

৪. নৈনিতাল

পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর জন্য নৈনিতাল মনোমুগ্ধকর একটি জায়গা। দিল্লি থেকে অদূরে অবস্থিত নৈনিতালে রয়েছে করবেট ন্যাশনাল পার্ক। এছাড়া রয়েছে নৈনা দেবীর মন্দির এবং নৈনি লেক। নৈনি লেকে পর্যটকদের জন্য নৌকা চালানোর সুযোগ রয়েছে।

৫. মুনসিয়ারি

পরিবারের সঙ্গে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের অন্যতম জায়গা হলো মুনসিয়ারি। পাহাড় থেকে জলপ্রপাতের জন্য এটি বিখ্যাত। মুনসিয়ারিতে অবস্থিত সরযূ নদী সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কাছে অত্যন্ত পবিত্র স্থান হিসেবে সমাদর লাভ করেছে। দিল্লি থেকে মুনসিয়ারির দুরত্ব ৫৫০ কিলোমিটার।

৬. ফাগু

দিল্লি থেকে কিছু দূরে অবস্থিত পাহাড়ঘেরা জায়গা ফাগু। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অবসর সময় কাটানোর উপযুক্ত জায়গা এটি। দিল্লি থেকে এর দুরত্ব ৩৬৬ কিলোমিটার। পানিপথ, কুরুক্ষেত্র, চণ্ডীগড়, সোলান, সিমলা হয়ে এখানে আসা যায়।

৭. পুশকার

দিল্লি থেকে ৪১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পুশকার পরিবারের মানুষের সঙ্গে সময় কাটানোর মনোরম জায়গা। পুশকারে যাওয়ার পথে পবিত্র দরগা আজমীর শরীফেও ভ্রমণ করা যায়। পুশকারে রয়েছে ব্রহ্ম মন্দির, পুশকার লেক, ঘাট এবং স্থানীয় মার্কেট রয়েছে। এছাড়া এখানে সাবিত্রী দেবীর মন্দির রয়েছে। নীমরানা থেকে জয়পুর, আজমীর শরীফ হয়ে পুশকারে যাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *