করোনা মহামারী শেষে যে ৯ দ্বীপে যেতে পারেন

করোনা মহামারীর কারণে থমকে যাওয়া জীবন নিয়ে পর্যটকদের অনেকেই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। অনেকেই নিজেকে প্রশ্ন করছেন এই জীবনে তবে কি ভ্রমণ করা হবে না? অনেক আশাবাদী পর্যটক আবার মহামারীর পর কোথায় যাওয়া যায় তার ছক আঁকছেন। এক্ষেত্রে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা দ্বীপগুলো ভ্রমণের জন্য উপযুক্ত জায়গা হতে পারে। করোনা মহামারী শেষ হলে যেসব দ্বীপে যেতে পারেন আসুন জেনে নেয়া যাক-

১. সেইচেলিস

ভারত মহাসাগরে অবস্থিত সেইচেলিস দ্বীপ একটি সবুজাভ দ্বীপ হিসেবে মানুষের কাছে পরিচিত। ষোড়শ শতাব্দিতে ইউরোপীয়রা দ্বীপটির সন্ধান পান। ফ্রান্স ও ব্রিটেনের মধ্যে এই দ্বীপের কর্তৃত্ব বিস্তারের জন্য কয়েক দফা যুদ্ধ হওয়ার পর অষ্টাদশ শতাব্দিতে ব্রিটিশরা এখানে কর্তৃত্ব বিস্তার করে। পরবর্তীতে ১৯৭৬ সালে দ্বীপটি যুক্তরাজ্যের অধীনতা থেকে মুক্ত হয়। করোনা মহামারী শেষ হওয়ার পর ভ্রমণের জন্য এই দ্বীপ সেরা একটি জায়গা।

২. পালাওয়ান

ফিলিপাইনে অবস্থিত হিলিগ্যানন অঙ্গরাজ্যের একটি অংশ এই দ্বীপ। এই দ্বীপের উত্তর-পূর্বদিকে মিনদোরো এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে বর্নিও অবস্থিত। দক্ষিণ চীন সাগর ও সুলু সাগরের তীরে অবস্থিত এই দ্বীপ। দ্বীপটির দৈর্ঘ্য ৪৫০ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ৫০ কিলোমিটার। দ্বীপটি স্পেন, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান কর্তৃক শাসিত হয়েছে। দ্বীপটি পর্যটকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে।

৩. করফু

করফু দ্বীপটি গ্রিসের প্রাচীন একটি দ্বীপ। এই দ্বীপে মানুষের প্রথম বসতি তৈরি হয়েছিলো ১৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে। পর্যটকদের জন্য এখানে রয়েছে রিসোর্ট যেখানে তারা বিশ্রাম নিতে পারেন। দ্বীপটি গ্রিসের মিথলজির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে সম্পর্কিত। স্থানীয়রা একে স্বর্গ হিসেবে বিবেচনা করে থাকে।

৪. আংগুলিয়া

আংগুলিয়া দ্বীপটি একটি ক্যারিবীয় দ্বীপ। বিপুল জনগোষ্ঠীর বসতি রয়েছে এই দ্বীপে। পর্যটকরা এই দ্বীপে সজীব সতেজ বাতাস উপভোগ করে থাকেন। এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র।

৫. বোরাকায়

ফিলিপাইনে অবস্থিত বোরাকায় দ্বীপ নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যবেষ্টিত একটি দ্বীপ। এখানে বিনোদনের সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। দ্বীপটিতে রয়েছে পর্যটকদের বিশ্রামের জন্য রিসোর্ট। দ্বীপটি আকর্ষণীয় একটি দর্শনীয় স্থান।

৬. কো লিপে

ছুটি বা অবসর সময়কে ফলপ্রসূ করে তুলতে এই দ্বীপকে বেছে নেন পর্যটকরা। মনোহরী নৈসর্গিক সৌন্দর্য দ্বীপটির বৈশিষ্ট্য। প্রতি বছর হাজারো পর্যটক সজীব ও সতেজ বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে ছুটে আসেন।

৭. সেন্ট বার্টস

প্রকৃতিপ্রেমী পর্যটকদের ভ্রমণের জন্য উৎকৃষ্ট জায়গা হলো সেন্ট বার্টস। এখানে রয়েছে বিলাসবহুল হোটেল ও রিসোর্ট। পর্যটকদের বিনোদনের জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। পর্যটকরা এখানে এসে ব্যাপক উল্লসিত হন।

৮. কাওয়াই

অবসর সময়কে মনের মত রাঙিয়ে তুলতে কাওয়াই দ্বীপে রয়েছে বিনোদনের ব্যবস্থা। রয়েছে বিলাসবহুল হোটেল, রিসোর্টসহ আরও অনেক কিছু। মনোরম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যবেষ্টিত দ্বীপটিতে রয়েছে বৈচিত্র্যময় আধুনিকতার ছোঁয়া।

৯. সান্তোরনি

গ্রিসে অবস্থিত দ্বীপটি সারা বিশ্বের পর্যটকদের কাছে অত্যন্ত আকর্ষণীয় জায়গা। এই দ্বীপে রয়েছে মনোমুগ্ধকর সমুদ্রসৈকত। সমুদ্রসৈকতে রয়েছে বিনোদনের ব্যবস্থা। পাহাড়ে বন্যপশুদের দেখতে দেখতে সুন্দর সময় কাটবে। পর্যটকরা এখানে এসে ছবি তোলেন এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *