যুক্তরাষ্ট্রের সেরা ৭ অদ্ভুত জায়গা

শৌখিন মানুষ ভ্রমণ করতে ভালোবাসেন। এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ঘুরে বেড়ানোতেই তাদের আনন্দ। যদি সেই স্থান কিছুটা ব্যতিক্রমী হয় তবে শখ মেটানো ও অ্যাডভেঞ্চার দুটোই মিলবে একসঙ্গে। যুক্তরাষ্ট্রে এমন অনেক জায়গা রয়েছে যেগুলো বেশ অদ্ভুত। এসব জায়গা সম্পর্কে মানুষের আগ্রহের কমতি নেই।

এমনই ৭টি অদ্ভুত জায়গা সম্পর্কে চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. অপরিচিত ব্যাগ রাখার জায়গা

ওয়াশিংটনে অবস্থিত এই জায়গা যুক্তরাষ্ট্রের সাধারণ নাগরিকরা সহজেই চিনতে পারবেন। ১৯৭০ সালে যুক্তরাষ্ট্র এয়ারলাইন্সের আনক্লেইম ব্যাগেজ সেন্টার স্থাপন করেছিলেন ডয়লে ওউয়িন। আজ পর্যন্ত এখানে অসংখ্য হারানো ব্যাগ বিক্রি করা হয়ে থাকে। ১৯৯৫ সালে আলবামায় স্থানান্তরিত হন ডয়লে ওউয়িন।

২. ওয়াল ড্র্যাগ স্টোর

১৯৩১ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিলো সাউথ ডেকোটায় অবস্থিত ওয়াল ড্র্যাগ স্টোর। এটি প্রতিষ্ঠা করে টেড হস্টেড নামে এক ব্যক্তি। বর্তমানে এটি একটি ফার্মেসি মিউজিয়াম। ৩০০০ ডলার ব্যয়ে তিনি ছোট একটি ফার্মেসি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৩১ সালের গ্রেড ডিপ্রেশনের কারণে ফার্মেসিটি ক্ষতির সম্মুখীন হয়।

৩. নিকোলাস কেজের সমাধি

২০১০ সালে নিউ অরলিনস কবরস্থানে তার নিজের কবরের জন্য কিছু জায়গা কিনেছিলেন নিকোলাস কেজ। নিকোলাস কেজ যুক্তরাষ্ট্রের চলচ্চিত্র জগতের প্রবাদপ্রতীম ব্যক্তিত্ব। ১৯৬৪ সালের ৭ জানুয়ারি মৃত্যুর পর তার কবরের পাশে ২ দশমিক ৭ মিটার উঁচু পাথরের পিরামিড তৈরি করা হয়। এটি পর্যটকদের সহজেই আকৃষ্ট করে।

৪. দ্য হোবো মিউজিয়াম

১৯০০ সালে আটলাস অঙ্গরাজ্যের ব্রিট নামক স্থানে ন্যাশনাল হোবো কনভেনশন শুরু হয় যা বাৎসরিক অনুষ্ঠান নামে পরিচিত। বর্তমানে এটি মিউজিয়াম হিসেবে সংরক্ষিত রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম।

৫. অক্টোপাসের গাছ

অরেগন অঙ্গরাজ্যে অবস্থিত অক্টোপাসের গাছ দেখতে যেন অক্টোপাসের মতোই। স্থানীয়রা এখানে তাদের বিভিন্ন উৎসব পালন করে থাকে। এটি ব্যতিক্রমী জায়গা হওয়ার কারণে পর্যটকরাও এর প্রতি আকৃষ্ট হয়।

৬. বেন ও জেরির কবরস্থান

ভারমন্ট নামক স্থানে অবস্থিত বেন ও জেরির কবরস্থান অদ্ভুত একটি জায়গা। কবরস্থানটি দর্শনার্থীদের জন্য ১৯৯৭ সালে খুলে দেয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ এখানে মাঝেমধ্যে ভ্রমণ করে থাকেন। সারা বিশ্বের কবরস্থানটির জনপ্রিয়তা রয়েছে।

৭. ক্রস আইল্যান্ড চ্যাপেল

পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট চার্চ হলো ক্রস আইল্যান্ড চ্যাপেল। ১৯৮৯ সালে এটি নিউইয়র্কের ছোট একটি স্থান ওনিডায় তৈরি করা হয়েছিলো। এর অবস্থানের কারণে পর্যটকরা চার্চটির প্রতি সহজেই আকৃষ্ট হয়ে থাকেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *